সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাস্‌সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক সুন্নতি সামগ্রীর অনুকরণে কিছু সুন্নতি সামগ্রীর ছবি (সংক্ষিপ্ত বর্ণনাসহ)

মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন, নিশ্চয়ই তোমাদের জন্য আমার রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মধ্যে রয়েছে উত্তম আদর্শ। (সূরা আহযাব)

আল্লাহ পাক তিনি আরো ইরশাদ করেন, হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি বলেদিন, যদি তারা আল্লাহ পাক উনার মুহব্বত লাভ করতে চায় তাহলে তারা যেনো আপনার অনুসরণ করে, তাহলে আমি আল্লাহ পাক স্বয়ং তাদেরকে মুহব্বত করবো, তাদেরকে ক্ষমা করবো, তাদের প্রতি দয়ালু হবো; নিশ্চয়ই আল্লাহ পাক ক্ষমাশীল ও দয়ালু। (সুরা আল ইমরান ৩১)

সুন্নতের ফযীলত সম্পর্কে হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ করেন, “যে ব্যক্তি আমার সুন্নতকে মুহব্বত করলো, সে মূলতঃ আমাকেই মুহব্বত করলো। আর যে আমাকে মুহব্বত করবে, সে আমার সাথে জান্নাতে থাকবে।” (তিরমিযী শরীফ)

অন্যত্র ইরশাদ হয়েছে, আখিরী যামানায় যে ব্যক্তি একটি সুন্নত আঁকড়ে ধরে থাকবে তথা আমল করবে তাকে এর বিনিময়ে একশত শহীদ এর ছওয়াব প্রদান করা হবে।

সুন্নতি পাগড়ি মুবারক:

b1cd9d12d66537a02ca15f22b7e94a47_xlarge

পাগড়ীর সংক্ষিপ্ত বর্ণনা: পাগড়ী পরিধান করা দায়েমী সুন্নত। নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সর্বদা পাগড়ী মোবারক পরিধান করতেন। তিনি ঘরেও পাগড়ী মোবারক পরিধান করতেন। মক্কা শরীফ বিজয়ের সময়ে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মাথা মোবারক-এ কাল পাগড়ী মোবারক ছিল। উনার পাগড়ী মুবারক-এর নিচে এবং পাগড়ী মুবারক ব্যতীত শুধু টুপিও ব্যবহার করেছেন। Read the rest of this entry

সুমহান মহাপবিত্র ২রা মুহররমুল হারাম শরীফ- আবূ রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, যবীহুল্লাহ, খইরুল বাশার, সাইয়্যিদুল আরব, আবুল বাশার, ছাহিবুল জান্নাহ, ছাহিবু নূরিম মুজাসসাম, সাইয়্যিদুনা হযরত আব্দুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার সুমহান মহাপবিত্র বিছাল শরীফ দিবস।

kuranikerim112410759611

মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “মহান আল্লাহ পাক তিনি চান হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে পবিত্র করার মতো পবিত্র করতে।” অর্থাৎ উনাদেরকে পবিত্র করার মতো পবিত্র করেই সৃষ্টি করেছেন। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “আমি দুইজন যবেহ আলাইহিমাস সালাম উনাদের আওলাদ।”
সুমহান মহাপবিত্র ২রা মুহররমুল হারাম শরীফ-
আবূ রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, যবীহুল্লাহ, খইরুল বাশার, সাইয়্যিদুল আরব, আবুল বাশার, ছাহিবুল জান্নাহ, ছাহিবু নূরিম মুজাসসাম, সাইয়্যিদুনা হযরত আব্দুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার সুমহান মহাপবিত্র বিছাল শরীফ দিবস। Read the rest of this entry

সাইয়্যিদুনা হযরত খাজা আব্দুল্লাহ যবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার পবিত্রতম বিছাল শরীফ উনার কথা শুনে সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহিলল জান্নাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন উম্মু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হযরত আমিনা আলাইহাস সালাম তিনি পূত-পবিত্র জবান মুবারক-এ পাঠকৃত শোকাবহ ও প্রশংসামূলক “পবিত্র না’ত শরীফ”

সাইয়্যিদুনা হযরত খাজা আব্দুল্লাহ যবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার পবিত্রতম বিছাল শরীফ গ্রহণের কথা শুনে সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহিলল জান্নাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন উম্মু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হযরত আমিনা আলাইহাস সালাম তিনি পূত-পবিত্র জবান মুবারক-এ শোকাবহ ও প্রশংসামূলক “পবিত্র না’ত শরীফ” পাঠ করেন। এ সম্পর্কে কিতাবে উল্লেখ করা হয়, Read the rest of this entry

যবীহুল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত খাজা আব্দুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার পবিত্রতম বিছাল শরীফ গ্রহণের ওয়াক্বিয়া মুবারক

প্রসঙ্গে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-
رجحه الامام الواقدى و قال و كان حضرة عبد الله عليه السلام قد رجع ضعيفا مع قريش لـما رجعوا من تـجارتـهم و مروا بالـمدينة فتخلف عند اخواله بنى عدى بن النجار فاقام عندهم مريضا شهرا فلما قدم اصحابه مكة سألـهم حضرة عبد الـمطلب عليه السلام عنه فقالوا خلفناه مريضا فبعث اليه اخاه الـحارث فوجده قد توفى و دفن فى دار التابعة و قيل دفن بالابواء
অর্থ: হযরত ইমাম ওয়াক্বিদী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি তারজীহ বা প্রাধান্যপ্রাপ্ত বর্ণনা সূত্রে বর্ণনা করে বলেন যে, সাইয়্যিদুনা হযরত যবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম তিনি অসুস্থতাকে গ্রহণ করায় কুরাইশদের সাথে ব্যবসা থেকে প্রত্যাবর্তন করার ইচ্ছা মুবারক পোষণ করেন। যখন ব্যবসা থেকে ফিরে আসার ইচ্ছা মুবারক পোষণ করলেন এবং সকলেই পবিত্র মদীনা শরীফ উনার পার্শ্ব দিয়ে অতিক্রম করতে লাগলেন। Read the rest of this entry

হুসনুল খলুক্ব, হুলুওউল কালাম, হামিলু লিওয়ায়িল হামদ, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আ’মাম (চাচাগণ), আম্মাত (ফুফুগণ) ও আখওয়াল (মামাগণ) আলাইহিমুস সালাম উনাদের নাম মুবারক

মহান আল্লাহপাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,
قل لا اسئلكم عليه اجرا الا الـمودة فى القربى
অর্থ: “হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি জানিয়ে দিন, আমি তোমাদের নিকট কোনো বিনিময় চাচ্ছি না। আর চাওয়াটাও স্বাভাবিক নয়; তোমাদের পক্ষে দেয়াও কস্মিনকালে সম্ভব নয়। তবে তোমরা যদি ইহকাল ও পরকালে হাক্বীক্বী কামিয়াবী হাছিল করতে চাও; তাহলে তোমাদের জন্য ফরয-ওয়াজিব হচ্ছে, আমার হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করা, তা’যীম-তাকরীম মুবারক করা, উনাদের খিদমত মুবারক উনার আনজাম দেয়া।” (পবিত্র সূরা শুরা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ-২৩) Read the rest of this entry

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার দেহস্থিত সবকিছু পাক ও তা গলধঃকরণ নাজাত হাছিলের কারণ হলে তিনি যে সমস্ত সুমহান ব্যাক্তিত্ব-ব্যাক্তিত্বা উনাদের মাধ্যমে এসেছেন উনাদের দেহাবয়বের কি হুকুম?

পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে এসেছে, উহুদের ময়দানে কিছু ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মাথা মুবারকের ক্ষতস্থান হতে নির্গত নূরুন নাজাত মুবারক অর্থাৎ রক্ত মুবারক যাতে যমীনে না পড়তে পারে সেজন্য উনারা তা চুষে চুষে পান করেছিলেন। এতদশ্রবণে তিনি উনাদেরকে বললেন, আপনাদের জন্য জাহান্নামের আগুন হারাম হয়ে গেল। অর্থাৎ আপনারা নিশ্চিত জান্নাতী। এছাড়া যে সকল ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার শরীর মুবারকে শিঙ্গা লাগিয়ে নূরুন নাজাত (রক্ত) মুবারক পান করেছিলেন উনাদের ক্ষেত্রেও তিনি উক্ত সুসংবাদ দান করেছিলেন। সুবহানাল্লাহ! Read the rest of this entry

খইরু খলক্বিল্লাহ, খইরুল বারিয়্যাহ, খইরুল আলামীন, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নসবনামা মুবারক ও উনাদের মর্যাদা

মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,
الله اعلم حيث يحعل رسلته
অর্থ: মহান আল্লাহ পাক তিনি সর্বাধিক জ্ঞাত আছেন রিসালত কাকে দেয়া আবশ্যক।” (পবিত্র সূরা আনয়াম শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ১২৪)
পবিত্র নুবুওওয়াত ও রিসালত সাধনালব্ধ কোনো বিষয় নয়। “এটা মহান আল্লাহ পাক উনার একান্ত ফজল ও করম। তিনি যাঁকে ইচ্ছা তাঁকে তা দান করেন।”
আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সকল নবী-রসূল আলাইহিমুস সালামগণ উনাদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ। তিনি শুধু মহান আল্লাহ পাক তিনি নন। এছাড়া যত মর্যাদা-মর্তবা রয়েছে, সকল মর্যাদা-মর্তবার অধিকারী তিনি। Read the rest of this entry

যাবীহুল্লাহিল মুকাররম সাইয়্যিদুনা হযরত খাজা আব্দুল্লাহ আলাইহিস সালাম

মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত পিতা সাইয়্যিদুনা হযরত খাজা আব্দুল্লাহ আলাইহিস সালাম তিনি হচ্ছেন যবীহুল্লাহিল মুকাররম। আজ পবিত্র ২রা মহররমুল হারাম শরীফ উনার পবিত্র বিছাল শরীফ সুমহান গ্রহণের দিন। এই পবিত্র দিনকে স্মরণ করতঃ মহান আল্লাহ পাক এবং উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নৈকট্য তায়াল্লুক, নিসবত মুহব্বত মুবারক লাভের পথকে প্রসারিত করার জন্য যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ খলীফাতুল্লাহ খলীফাতু রসূলিল্লাহ ইমামুল আইম্মাহ, মুহইস সুন্নাহ কুতুবুল আলম মুজাদ্দিদে আ’যম, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা, ইমাম, রাজারবাগ শরীফ উনার মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি বিশেষ ব্যবস্থা করেছেন।
‘যাবিহুল্লাহিল মুকাররম’ অর্থ:- ‘মহান আল্লাহ পাক উনার জন্য সম্মানিত যবেহ বা উৎসর্গ।’ Read the rest of this entry

সাইয়্যিদুনা হযরত খাজা আবূ রসূলিল্লাহি যাবীহিল্লাহি আলাইহিস সালাম উনার মুবারক পরিচিতি বেমেছাল মর্যাদা ও পবিত্রতা

মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন,
قل لااسئلكم عليه اجرا الا المودة فى القربى
“হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি জানিয়ে দিন, আমি তোমাদের নিকট কোনো বিনিময় চাচ্ছি না। আর চাওয়াটাও স্বাভাবিক নয়; তোমাদের পক্ষে দেয়াও কস্মিনকালে সম্ভব নয়। তবে তোমরা যদি ইহকাল ও পরকালে হাক্বীক্বী কামিয়াবী হাছিল করতে চাও; তাহলে তোমাদের জন্য ফরয-ওয়াজিব হচ্ছে, আমার হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করা, তা’যীম-তাকরীম মুবারক করা, উনাদের খিদমত মুবারক উনার আনজাম দেয়া।” (পবিত্র সূরা শুরা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ-২৩) Read the rest of this entry

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত পিতা-মাতা আলাইহিমাস সালাম উনারা ফাতরাত যুগের অন্তর্ভুক্ত ছিলেন এবং উনারা দ্বীনে হানিফের উপর কায়িম ছিলেন

সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আনুষ্ঠানিক নুবুওওয়াত ঘোষণার বহু পূর্বে এবং সাইয়্যিদুনা হযরত ঈসা রূহুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার থেকে প্রায় পাঁচশত বছর পরে উনার সম্মানিতা পিতা-মাতা আলাইহিমাস সালাম উনারা উভয়েই পবিত্র বিছাল শরীফ গ্রহণ করেন। উনারা কোনো হযরত নবী আলাইহিমুস সালাম উনার আমল বা যামানা পাননি। উনাদের নিকট পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার দাওয়াত পৌঁছেনি এবং উনারা দুই নবী আলাইহিমাস সালাম উনাদের অন্তবর্তীকালীন সময়ে পবিত্র বিছাল শরীফ গ্রহণ করেন। এ সময়টাকে বলা হয় ফাতরাত যুগ। Read the rest of this entry

সর্বশ্রেষ্ঠ ও মহাসম্মানিত পিতা উনার পবিত্রতম বিছাল শরীফ দিবস পালন

আমি আপনি আমরা সকলেই কমবেশি নিজেদের পিতা-মাতা উনাদের ইন্তেকাল দিবস পালন করি। এ উপলক্ষে বিশেষভাবে দান-সদকা ও দোয়া-মাহফিলের আয়োজন করি। কিন্তু আমরা কি কখনো ভেবে দেখেছি যিনি আমাদের ঈমান দান করেছেন, যে উসীলায় আমরা সৃষ্টি হয়েছি সেই নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত পিতা সাইয়্যিদুনা হযরত আব্দুল্লাহ যবীহুল্লাহি আলাইহিস সালাম উনার পবিত্র বিছাল শরীফ দিবস কবে? এবং এ উপলক্ষে উম্মত হিসেবে আমাদের দায়িত্ব কি?
অত্যন্ত আফসুস! মুসলিম উম্মাহর জন্য; উম্মাহ জানেই না কত তারিখে আবু রসুলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহিস সালাম তিনি মহাপবিত্র বিছাল শরীফ গ্রহণ করেছেন। Read the rest of this entry

Follow

Get every new post delivered to your Inbox.